Breaking News
Home / রাজনীতি / তালা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, লড়াই হবে নৌকা বনাম আনারস

তালা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন, লড়াই হবে নৌকা বনাম আনারস

এসএম হাসান আলী বাচ্চু,তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা:
আগামী ২৪ মার্চ তালায় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করলেও মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে এক প্রার্থী মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেয়ার পর এখন মাঠে আছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত(নৌকার) প্রার্থী ঘোষ সনৎ কুমার এবং স্বতন্ত্র ব্যানারে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারি আওয়ামী লীগ নেতা মুক্তিযোদ্ধা এমএম ফজলুল হক।
প্রকাশ,উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ঘোষ সনৎ কুমারের বিপরীতে একাধিকবার ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী,রাজনীতিতে ক্লিন ইমেজের অধিকারি মুক্তিযোদ্ধা এমএম ফজলুল হক স্বতন্ত্র ব্যানারে প্রতিদ্বন্বিতা করলেও বর্ষিয়ান আওয়ামী লীগ নেতা হিসেবে তাকে শক্ত প্রতিপক্ষ হিসেবেই দেখছেন সাধারন ভোটাররা।
তথ্যমতে,আ:লীগ মনোনীত প্রার্থী ঘোষ সনৎ কুমারেও আছে রাজনৈতিক বণাঢ্য জীবন । সে তালা উপজেলার হরিশ্চন্দ্রকাটি গ্রামের স্বর্গীয় নির্মল চন্দ্র ঘোষের পুত্র ১৯৭৫ সালে পঞ্চম শ্রেনীতে অধ্যয়নরত অবস্থায় আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় বাবার সাথে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন ও মুক্তিযোদ্ধা স ম লুৎফর রহমানের সান্নিধ্যে ছাত্র লীগের রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়া সেদিনের সহজ-সরল কিশোরটি আজ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও পর পর দু’মেয়াদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায়ের কাউন্সিলরদের দ্বারা মনোনীত হয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। রাজনীতির মাঠের চড়াই-উতরাই ,একাধিক হয়রানিমূলক মামলা, জেল জুলুমে যেমন ছন্দ পতন ঘটেনি ওই রাজনীতিকের তেমনি সকল ষড়যন্ত্রকে তুচ্ছজ্ঞান করে মাথা উঁচু করে আজও নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন দেশের সবচেয়ে প্রাচীনতম সংগঠন আওয়ামী লীগের। আশির দশকে সাতক্ষীরা জেলায় হাতে গোনা যে সকল ডাকসাইটের ছাত্রনেতার আবির্ভাব ঘটেছিল তাদের মধ্যে অন্যতম হিসেবে ইতিহাসের পাতায় সাক্ষী হয়ে আছেন ঘোষ সনৎ কুমারের নাম। ১৯৮০ সালে তালা কলেজে ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ১৯৮২ ,সালে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি,১৯৮৩ সালে থানা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক এরপর টানা ১৯৯৬ ,সাল পর্যন্ত উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের মধ্যেই ১৯৯৬ সালে উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে শতকরা ৭৫ ভাগ কাউন্সিলরের ভোটে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার মধ্যদিয়ে ছাত্রলীগ থেকে সরাসরি আওয়ামী লীগের মূল নেতৃত্বে চলে আসেন ঘোষ সনৎ কুমার। সেখান থেকে একাধিকবার দলের কাউন্সিলরদের সরাসরি ভোটে সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হওয়াসহ ২০০৯ ও ২০১৪ সালে কাউন্সিলদের সরাসরি ভোটে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রার্থী মনোনীত হয়ে টানা ১০ বছর উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। ঘোষ সনৎ কুমারের হলো দীর্ঘ ১০ বছর উপজেলা চেয়ারম্যানের থাকা ওই মানুষটির দ্বারা কেউ কখনো ক্ষতিগ্রস্Í হয়নি। উপরন্ত উপজেলা চেয়ারম্যানের মতো গুরুত্বপূর্ন পদে আসীন থেকেও সাদামাটা জীবন-যাপনে অভ্যস্ত সদা হাস্যোজ্জল ওই মানুষটি সাধারন মানুষের বিপদ-আপদের কথা শুনলেই ছুটে গেছেন সবার আগে। রাস্তার ফেরিওয়ালা থেকে শুরু করে ছোট-বড় নানান পেশার মানুষ তার বন্ধু। উপজেলার প্রত্যেকটি বাড়ী যেমন তার চেনা তেমনি আতিক সম্পর্ক বাড়ীর মানুষগুলোর সাথে।তার দাবি বঙ্গবন্ধু কন্যা, মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে চলছে তারই প্রতিনিধি হিসাবে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তালা উপজেলার সাধারণ ভোটাররা আমাকে নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করে অসম্পুর্ণ কাজ গুলো সম্পন্ন করার সুযোগ দিবে ।
অপর দিকে শক্ত অবস্থানে আছেন সতন্ত্র(আনারস)প্রতিকের প্রার্থী বর্ষীয়ান আ:লীগ নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা এমএম ফজলুল হক । তারও রয়েছে বণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ।তিনি উপজেলার শাহাজাতপুর গ্রামের মৃত এরফান আলী মোড়লের পুত্র । ১৯৭১ সালে আর কে বিকে (হরিশচন্দ্র ) ইন্সিটিউটে পড়–য়া অবস্থায় মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ্য গ্রহণ করেন । পরবর্তীতে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি,যুবলেিগর সভাপতি,তালা থানা আ:লীগের সভাপতি,সাতক্ষীরা জেলা আ:লীগের সদস্য,সহ-সভাপতি,্উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সহ ২য়বা খেশরা ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ।২০০৪ সালে বিএনপির আঘাতে কারনে পঙ্গতু বরন করেন । ২০০৩-২০০৭ সাল পর্যন্ত ৪ মামলায় চার্জশীট ভুক্ত হন । এখনো রাজনীতে সক্রিয় ভুমিকা পালন করে চলেছেন ।
তিনি জানান, আগামী ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছি। আমার প্রতীক আনারস। মুক্তিযুদ্ধের একজন সৈনিক হিসেবে দুর্নীতিমুক্ত তালা উপজেলা গড়ে তোলার লক্ষ্যে এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে সকল নির্বাচনী বিধিমালা মেনে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি। আমি নির্বাচিত হলে দুর্নীতি, অনাচার, স্বজনপ্রীতি ও অন্যায়ের সাথে কোন আপোষ করবোনা। আমার কাজের মাধ্যমে আমি একটি আধুনিক তালা উপজেলা গড়ে তোলার আপ্রাণ চেষ্টা করবো। উপজেলা পরিষদ কর্তৃক বাস্তবায়িত সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি ও ঘুষের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি মেনে চলবো।
তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালে দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করি। আমি তালা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার এবং তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়ন পরিষদের দুই বার নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আমি দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে তৃণমূল পর্যায়ে রাজনীতি করে আসছি।
আমি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ^াসী। আমি নির্বাচিত হলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক তালা উপজেলা গড়ে তুলবো। তালা উপজেলা আমাদের সকলের। এখানে নানা ধর্মের, নানা বর্ণের, নানান পেশার লোক বসবাস করে। ১৯৭১ সালে সকলে মিলে দেশ স্বাধীন করেছিলাম তেমনি আমি নির্বাচিত হলে সকলে মিলে উন্নত তালা উপজেলা গড়ে তুলবো। তালা উপজেলার বিপুল পরিমাণ তরুন কর্মক্ষম জনসম্পদ রয়েছে। আমি নির্বাচিত হলে তাদের জন্য যুগোপযোগী কারিগরী প্রশিক্ষণ গ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করবো, যাতে তারা পরিবর্তিত অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় অবদান রাখতে পারে।
জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা মীর জিল্লুর রহমান বলেন,বাংলাদেশের সাধারন ভোটাররা বরাবরই পরিবর্তনশীল চিন্তার অধিকারি। টানা ১০ বছর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের দায়িত্বে থাকা ঘোষ সনৎ কুমার আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী হিসেবে যথেষ্ট শক্তিশালী হলেও পরিবর্তনকামি মানুষ যে কোন মুহুর্ত্বে তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে সক্ষম আর তেমনটি হলে মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হকের দিকে পাল্লা ভারী হতে পারে।
সাধারণ ভোটাররা বলেন, প্রার্থী হিসেবে দু’জনই হেভিওয়েট আওয়ামী লীগ নেতা। পার্থক্য শুধু একজনের হাতে নৌকা আরেকজন স্বতন্ত্র। ফলে যে যে কোন মুহুর্ত্বে ভোটের হাওয়া এদিক ওদিক হওয়া বিচিত্র নয়। অন্যদিকে ভাইস চেয়ারম্যান পদে একাধিক প্রার্থী থাকায় সাধারন ভোটারদের সামনে নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দানের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ায় নির্বাচনটি ক্রমশই তীব্র প্রতিদ্বন্বিতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …