Breaking News
Home / সারাদেশ / বরিশাল / পটুয়াখালী / গলাচিপা উপজেলা নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী আ’লীগ নেতা মাঈনুল ইসলাম রনো

গলাচিপা উপজেলা নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী আ’লীগ নেতা মাঈনুল ইসলাম রনো

জসিম উদ্দিন, ষ্টাফ রিপোর্টার
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আমেজ কাটতে না কাটতেই ঘনিয়ে আসছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের ঘোষনা অনুযায়ী ফেব্রুয়ারীতে তফসিল এবং মার্চের ১ লা সপ্তাহ থেকে ৫ ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সম্ভাবনা রয়েছে। এ্ররই ধারাবাহিকতায় পটুয়াখালীর গলাচিপায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে সরকার দলীয় প্রার্থীরা ইতিমধ্যেই ব্যানার, ফেস্টুন গনসংযোগ শুরু করেছেন। পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে গলাচিপা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সফল চেয়ারম্যান ও সহ- সভাপতি আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক মো. নুরুল ইসলাম মিয়ার সু-যোগ্য সন্তান সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ১৯৮৬ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত। ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি। ১৯৮৭ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত গলাচিপা পৌর আওয়ামী লীগ এর সংগ্রামী সাধারন সম্পাদক ও ত্যাগী নেতা, সৎ, ন্যায়পরায়ন, সমাজ সেবক, জনদরদী ব্যাক্তিত্ব মো. মাঈনুল ইসলাম রনো সম্ভাব্য প্রার্থী।

প্রতিবেদককে মাইনুল ইসলাম রনো তাহার রাজনৈতিক সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরেন, তিনি বলেন তার পিতা মরহুম নুরুল ইসলাম একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও গলাচিপা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। স্কুল জীবন থেকেই তার পারিবারিক রাজনৈতিক ঐতিহ্যে তার রাজনীতি শুরু। ১৯৮৬সালে তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, ১৯৮৯ সালে গলাচিপা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নির্বাচিত হন, ১৯৯৭ সাল থেকে দুই হাজার আট সাল পর্যন্ত গলাচিপা পৌর আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ছিলেন, তিনি রেড ক্রিসেন্ড এর গলাচিপা ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি, তিনি গলাচিপা ছাত্র ঐক্য পরিষদের আহবায়ক। এছাড়াও তিনি গলাচিপায় আওয়ামীলীগের একজন ত্যাগী নেতা, ১৯৯০ এর স্বৈরচার বিরোধী আন্দোলন, বিএনপি জামাত জোট সরকাররের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রামে তিনি রাজ পথের একজন প্রতিবাদী আওয়ামীলীগ নেতা হিসেবে তিনি বহুবার অত্যাচার , জুলুম, ও নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন। গলাচিপা উপজেলায় একজন ত্যাগী আওয়ামীলীগ নেতা হিসেবে তার পরিচিতি ও ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে।

তিনি প্রতিবেদককে আরো বলেন, শত প্রতিকূলতার মাঝে দলের পিছনে আমি অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছি কিন্তু দলের কাছে কখনও কিছুই চাইনি। আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিবে বলে আমি আশা রাখি। আমি চাই দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত হয়ে, গালাচিপা উপজেলার সর্বসাধারনের সেবার মান নিশ্চিত করবো। আবার বাবা মো. নুরুল ইসলামের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে পারবো বলে আশা রাখি ইনশাল্লাহ্।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …