Breaking News
Home / আইন ও আদালত / ফতুল্লা থানার নাকের ডগায় মাদক বিক্রি জমজমাট

ফতুল্লা থানার নাকের ডগায় মাদক বিক্রি জমজমাট

এ,আর,কুতুবে আলম, ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা :
ফতুল্লার মডেল থানার নাকের ডগায় ফতুল্লার পাড়া মহল্লায় মাদক সেবী ও মাদক বিক্রেতাদের আড্ডা তাফালিং মাদক বিক্রি জমজমাট। এ যেন প্রশাসনের তেমন কোন নজরধারী নেই। ফলে মাদক নেশায় জড়িয়ে পড়ছে স্কুল কলেজ পড়–য়া ছাত্র ছাত্রীরা। এমনটাই বলছে এলাকার সচেতন মানুষ। এই মাদক বিক্রেতাদের সেল্টার দিচ্ছে ফতুল্লা থানা ও ডিবি পুলিশের পরিচয়দানকারী সোর্স তার পরিবারের সদস্যরা। এই সোর্স চালাচ্ছে মাদক ব্যবসা সমাজের অনৈতিক কাজ। এব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করে এলাকাবাসী।
এলাকা সূত্রে জানায়, ফতুল্লার লালপুর ,পৌষার পুকুর পাড় , সরকার বাড়ি সড়ক, আল-আমিন বাগ, ডিআইটি মাঠের আশ পাশের কতিপয় বেশ কয়েকটি স্থানে মাদক সেবী ও মাদক বিক্রেতাদের আড্ডা এবং তাফালিং বেড়েই চলছে। এ যেন দেখার কেউ নাই। নির্বাচনে পড়ে ফতুল্লা মডেল থানার কার্যক্রম আগের তুলনায় ঝিমিয়ে পড়েছে। ফলে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে ফতুল্লার থানা আশপাশেই মাদক বিক্রেতা ও মাদক সেবীর উৎপাত। লালপুরের বিভিন্ন সড়কে দলবদ্ধ ভাবে সন্ধার পড়ে ১৫ থেকে ২৫/২৬ বছর বয়েসী কিশোর ও যুবকদের আড্ডা একটু বেশি দেখা যায়। সরকারবাড়ী সড়কেও দেখা যায় বিভিন্ন বয়েসের ছেলে দের আড্ডা ফলে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাকুরীরত শ্রমিকরা বখাটেদের উৎপাতের শিকার হয়। অনেক সময় দেখা যায় গাঁজা ইয়াবা সেবন করে রাস্তার পাশেই। আবার সরু গলিতে আড্ডা দেয় একশ্রেনির বখাটেরা। এতে সাধারন মানুষের চলাচলের ভীষন সমস্যা সৃষ্টি হয় এমনটাই বলছেন সাধারন জনগণ। ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশের টহল পাগলা ,কুতুবপুর মাহমুদপুর, সস্তাপুর, এনায়েতনগর, মুসলিম নগর, সাইনবোর্ড, কাইয়ুমপুর,কাশিপুর,নরসিংপুর, বিসিকসহ থানার দূরবর্তী এলাকায় টহল পুলিশের জোরদার থাকলেও থানার নিকটতম লালপুর, পৌষারপুকুরপাড়, ডিআইটি মাঠের আশপাশে তেমন কোন পুলিশের টহল নেই। পৌষারপুকুরপাড়, মনির সু বাড়ির পাশে পাকিস্তানী খাদের সড়ক হতে শাহফতেউল্লাহ টেক্সটাইল মিলেস্ এর পেছনের সড়কে মাদক বিক্রেতা ও মাদক সেবীর আড্ডা প্রতিনিয়ত চলছে। এরা মাঝে মাঝে পথচারীদের আটক করে মোবাইল টাকা সহ মালামাল ছিনিয়ে নেয়। আবার সালেহ মোঃ নিলু মিয়ার বাড়ির পাশেই পরিত্যাক্ত তাগাড় পাড়ে মাদক সেবী ও বিক্রেতাদের সন্ধ্যা এবং দুপুরে হাট বসে। এখানে গভীর রাত পর্যন্ত মাদকখোরেরা আড্ডা দেয়। ঐ এলাকার ভাড়টিয়া ভয়ে সঙ্কায় আতংক থাকে । দেখা যায়, এই মাদক সেবীদের সাথে থানা পুলিশের সোর্সরাও থাকে। থানার ভাড়া চালিত গাড়ী চালকদের মাঝে মাঝে ঐ আড্ডা দিতে দেখা যায় বখাটেদের সাথে এমনটাই বলছেন এলাকার সচেতন মানুষ। ফতুল্লারু সড়কগুলো বখাটেদের আড্ডা থেকে মুক্ত রাখার জন্য থানার টহল পুলিশের জোড় দাবী পথচারী ও সাধারন মানুষেরা। এই মাদক সেবী বখাটেদের খপ্পরে পড়ে অনেক মেধাবী ছাত্ররাও নষ্ট হয়ে গেছে। মাদকের ও বখাটেদের আড্ডা দূর করার লক্ষ্যে এলাকার মুরুব্বী ও অভিভাবকদের সন্তান মাদক মুক্ত রাখার জন্য সহযোগিতা কামনা প্রশাসনের কাছে।
এব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ জানান মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবী যেই তাকে গ্রেপ্তার করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে ইনশাল্লাহ। মাদক ব্যবসায়রি দল নেই। এরা দেশের শত্রু জাতির অভিশাপ। তাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স আমাদের বর্তমানের এসপি মহোদয় ।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …