Breaking News
Home / আইন ও আদালত / ফতুল্লায় অষ্টম শ্রেনির ছাত্রী অপহরন, গ্রেপ্তার-২

ফতুল্লায় অষ্টম শ্রেনির ছাত্রী অপহরন, গ্রেপ্তার-২

এ,আর,কুতুবে আলম, ফতুল্লা (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা :
ফতুল্লা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেনির ছাত্রী জান্নাতুল আক্তার মিষ্টি (১৩) কে জোর পূর্বক অপহরন করেছে জহিরুল ইসলাম ও তার সাঙ্গ পাঙ্গরা। এ ঘটনায় গত ১২ ডিসেম্বর ফতুল্লা মডেল থানায় মিষ্টি‘র বাবা নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে। মামলা নং-৩৭(১২)১৮। এই মামলার এজাহার ভূক্ত আসামী রাজিয়া বেগম (৪৫) ও তার ছেলে রেজাউল (২৬) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতদেরকে ঐ দিনেই ৭দিনের রিমান্ড চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।
মামলা সূত্রে জানাযায়, ফতুল্লার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেনিতে পড়ালেখা করে জান্নাতুল আক্তার মিষ্টি । সে পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া থানাধীন চম্পাপুর মাছুয়াখালী গ্রামের মৃত হাশেম হাওলাদারের ছেলে নাসির উদ্দিনের মেয়ে। তারা ফতুল্লার দাপাইদ্রাকপুর পাইলট স্কুল রোড আয়েদ আলীর বাড়িতে ভাড়া থাকে। পাশেই লিটনের বাড়িতে ভাড়া থাকে জহিরুল ইসলাম (২২) ও তার পরিবার। সে পটুয়াখালী জেলা কলাপাড়া থানাধীন লালুয়া চান্দুপাড়া গ্রামের মো. তাজেম আলী হাওলাদারের ছেলে জাহাঙ্গির হাওলাদারের ছেলে । সে মিষ্টি‘র চলার পথে বিভিন্ন সময় জহিরুল ইসলাম প্রেম প্রস্তাব দেয়। তার প্রস্তাব না মানলে সে অপহরন করে নেয়ার হুমকী দিতো। এ ব্যাপারে মিষ্টি তার বাবা নাসির উদ্দিনের কাছে জানালে নাসির জহিরুলের বাবা জাহাঙ্গির ও মা রাজিয়াকে জানায়। এতে রাজিয়া ও জাহাঙ্গির এবং জহিরুল ইসলামের বড় ভাই রেজাউল ক্ষিপ্ত হয়ে নাসিরকে গালমন্দ করে। এমনকি তারা বিয়ের প্রস্তাব দেয়। তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে তারা গত ৭ ডিসিম্বর সকাল সাড়ে টায় জহিরুল ইসলাম তার মা বাবা ও ভাইয়ের ইন্দন ও পরামর্শে জান্নাতুল আক্তার মিষ্টি কে বাসার সামনে থেকে জোর পূবর্ক অপহরন করে নেয়। এই ঘটনায় ফতুল্লা থানায় নাসির বাদী হয়ে মামলা করলে পুলিশ ৩নং আসামী রাজিয়া বেগম ও ৪ নং আসামী রেজাইল কে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত রাজিয়া সাংবাদিকদের জানান, তার ছেলের সাথে জান্নাতুল আক্তার মিষ্টি‘র ভালবাসার সম্পর্ক আছে। মিষ্টিকে অপহরন করেনি জহিরুল ইসলাম। মিষ্টি জহিরুল ইসলামের সাথে স্বেচ্ছায় চলেগেছে। তারা বিয়ে করেছে। তিনি আরও জানান, এই ঘটনার সাথে সে জড়িত নয়। গ্রেপ্তারকৃত রেজাউল জানান, মিষ্টি ও তার খালা লিপি পরিকল্পিত ভাবে ভালবাসার টানে দুই জনেই একই দিনে চলে যায়। লিপি ওতার প্রেমিকের সাথে বিয়ে করে এবং মিষ্টিও তার প্রেমিক জহিরের সাথে বিয়ে হয়। কিন্তু আমি ও আমার মা কিছুই জানিনা।
ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ জানান, ভিকটিম উদ্ধার হয়নি। তাই ভিকটিম উদ্ধারের জন্য রিমান্ড চেয়েছি।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …