Breaking News
Home / আইন ও আদালত / রাঙ্গাবালীতে পাউবো’র জমি দখল করে ভবন নির্মাণ

রাঙ্গাবালীতে পাউবো’র জমি দখল করে ভবন নির্মাণ

আল আমিন, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সরকারি জমি দখল করে পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার সদর ইউনিয়নের খালগোড়া বাজারে একতলা ভবন নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এদিকে, ওই ভবনের নির্মাণকাজ বন্ধ ও অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন পাউবো। কিন্তু এই নির্দেশ উপেক্ষা করে স্থানীয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় এক নারী ভবনটি নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।
জানা গেছে, প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় সদর ইউনিয়নের খালগোড়া বাজারের চৌরাস্তা দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিম পাশে পাউবোর সরকারি জমি দখল করে স্থানীয় মমতাজ বেগম নামের এক নারী একতলা ভবনের নির্মাণকাজ চালাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে তিনি কোন আইন কানুনের তোয়াক্কা করছেন না। একাধিকবার পুলিশ বাঁধা দিলেও তিনি ভবনটির নির্মাণকাজ বন্ধ করেননি। প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় তিনি ভবনটির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।
এ ঘটনায় সদর ইউনিয়নের নিজ হাওলা গ্রামের বাসিন্দা মিতা রানী কুন্ডের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২২ নভেম্বর মমতাজ বেগমকে লিখিত চিঠি দিয়ে ওই অবৈধ স্থাপনার নির্মাণকাজ বন্ধ ও অপসারণের নির্দেশ দিয়েছেন পাউবো। ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, অনুমতি ব্যতিরেকে অন্যায়ভাবে পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বিভাগের আওতাধীন মমতাজ বেগম পাকা স্থাপনা নির্মাণ করছেন। যার পোল্ডার নম্বর-৫২/৫৩ বি, রাঙ্গাবালী মৌজার জে.এল নম্বর-১৫০, এস.এ খতিয়ান নম্বর-২৬৮, দাগ নম্বর-২২৭ ও ২২৮। যা সরকারি সম্পত্তি জবর দখলের সামিল। এই অবস্থায় অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকাজ বন্ধসহ ৭ দিনের মধ্যে দখলকৃত জায়গা খালি করে দেওয়ার জন্য তাকে অনুরোধ করা হয়। অন্যথায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
রোববার সরেজমিনে দেখা গেছে, পাউবোর নির্দেশ উপেক্ষা করে একতলা ওই ভবনটির নির্মাণকাজ চালানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে ভবনটির অবকাঠামোর কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন শুধু পলেস্তরা, দরজা-জানালা ও টিনশেড কিংবা ছাদের কাজ বাকি। স্থানীয় বাসিন্দা মিতা রানী কুন্ডু বলেন, আমি পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছ থেকে একসময় একসনা লিজ (বন্দোবস্ত) নিয়ে ওইখানে দোকান দিয়েছিলাম। মেয়াদ শেষ হওয়ায় লিজের জন্য আবারও আবেদন করেছি। এরমধ্যে কাউকে লিজ না দিলেও মমতাজ সেই সরকারি জমিতে ভবন নির্মাণ করছে। কিন্তু পানি উন্নয়ন বোর্ড ও আদালতের নির্দেশ না মেনে মরহুম উপজেলা চেয়ারম্যান আহসান কবির চাঁনের ছেলে সোহাগ হাওলাদার ও রুবেল হাওলাদারের ছত্রছায়ায় মমতাজ ভবনটির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।
রাঙ্গাবালী থানার ওসি মিলন কৃষ্ণ মিত্র বলেন, খোঁজ খবর নিয়ে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …