Breaking News
Home / সারাদেশ / রংপুর / গাইবান্ধা / গাইবান্ধা -১ আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন এমপি লিটন হত্যা মামলার প্রধান আসামি অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল কাদের খান

গাইবান্ধা -১ আসনে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন এমপি লিটন হত্যা মামলার প্রধান আসামি অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল কাদের খান

আল কাদরী কিবরীয়া সবুজ, গাইবান্ধা সংবাদদাতা
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন ক্ষমতাসীন দলের এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলার প্রধান আসামি সাবেক এমপি কর্নেল (অব) ডা. আব্দুল কাদের খাঁন। বৃহস্পতিবার (২২ নভেম্বর) বিকালে তিনি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত ৯জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তাদের মধ্যে গওফল আজম সরকার নামে একজন প্রতিনিধির মাধ্যমে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন আব্দুল কাদের খাঁন। গওফল আজম সরকার কাদের খাঁনের সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ছাপরহাটি গ্রামের বাড়ির প্রতিবেশী বলে জানায়। এসময় গওফল আজমের সঙ্গে আরও দু’জন ছিলেন।

আব্দুল কাদের খাঁন একই আসনের জাপার সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হন।

আব্দুল কাদের খাঁন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আ.লীগের নির্বাচিত এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রধান আসামি। ২০১৭ সালের ২২ ডিসেম্বর পুলিশের হাতে তিনি গ্রেফতার হন । এরপর থেকে তিনি গাইবান্ধা জেলা কারাগারে রয়েছেন।

এ বিষয়ে গাইবান্ধা জেলা আদালতের পিপি শফিকুল ইসলাম শফিক জানান, কাদের খাঁন এমপি লিটন হত্যা মামলার প্রধান আসামি। বর্তমানে মামলাটির এখন সাক্ষ্যগ্রহণ কার্যক্রম চলছে। যেহেতু এই মামলার এখনও রায় হয়নি তাই নির্বাচন করতে কাদের খাঁনের কোনও আইনি জটিলতা নেই। তবে কারাগারে থেকেই নির্বাচন করতে হবে তাকে। এক্ষেত্রে তার জামিনের কোনও সুযোগ নেই। তবে কারাগার থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করতে হলে আদালতের অনুমতি নিতে হয়। তবে কাদের খাঁন কোনও অনুমতি নিয়েছেন কিনা তা তার জানা নেই বলে জানান শফিকুল ইসলাম শফিক।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সুন্দরগঞ্জের সর্বানন্দ গ্রামের নিজ বাড়িতে গুলি করে হত্যা করা হয় গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে। এ ঘটনায় লিটনের বড় বোন ফাহমিদা কাকলি বুলবুল বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৪-৫ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে মামলায় কাদের খাঁনসহ আট জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ পত্র দেয় পুলিশ। বর্তমানে কাদের খাঁনসহ চার্জশিটভুক্ত সাত আসামি জেলা কারাগারে রয়েছেন। এক আসামি পলাতক।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …