Breaking News
Home / সারাদেশ / রংপুর / গাইবান্ধা / শিক্ষার বয়স লাগে না : ৪১ বছর বয়সে জেএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন পলাশবাড়ী উপজেলার “রুমা”

শিক্ষার বয়স লাগে না : ৪১ বছর বয়সে জেএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন পলাশবাড়ী উপজেলার “রুমা”

আল কাদরী কিবরীয়া সবুজ, গাইবান্ধা জেলা সংবাদদাতা
“লেখা পড়ার বয়স নাই, চলো সবাই স্কুলে যাই” শিক্ষাগ্রহনের এ শ্লোগানকে বুকে ধারণ করে ৪১ বছর বয়সে অষ্টম শ্রেণির সমাপনী (জেএসসি) পরীক্ষায় অংশ নিয়ে চমক সৃষ্টি করেছে গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার এক শিক্ষার্থী। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে সাদুল্লাপুর ইদিলপুর শ্যামলের বাজার মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী ধাপের হাট বি এম কলেজ কেন্দ্রে গতকাল কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছেন। পরীক্ষার্থী পলাশবাড়ী উপজেলার গৃধারীপুর গ্রামের মৃত্যু শাহাজাদার স্ত্রী।

পরীক্ষার্থী রুমা খাতুন জানান, চাকরির জন্য অন্তত একটি সার্টিফিকেট দরকার, আগে থেকে যদি পড়ালেখা করতাম তাহলে আজ অভাব অনাটনে সংসার চালাতে হত না, এটা বুঝতে পেরে পড়াশুনা শুরু করেছি আমি এক জন নারী হয়ে এ বয়সে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে চাই, আমার যদি সার্টিফিকেট থাকতো তাহলে আজ সংসার জীবনে ছেলে মেয়ে নিয়ে এতো কষ্টে থাকতে হত না। রুমা খাতুনের এক ছেলে, এক মেয়ে। ছেলে ধাপের হাট বি এল কলেজে একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত, মেয়ে পলাশবাড়ী শিশু কাননে ৭ম শ্রেণির ছাত্রী। কারিগরি শিক্ষা নিয়ে ব্যক্তি জীবনে তিনি স্বাবলম্বী হতে পারবেন বলেই পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছেন। যখন বুঝতে পেরেছেন, চতুর্থ শ্রেণির একটি চাকরির আবেদন করতে হলেও অন্তত অষ্টম শ্রেণির একটি সনদপত্র দরকার হয়। সেই শিক্ষা থেকেই তিনি ইদিলপুর শ্যামলের বাজার মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের ভর্তি হয়ে নিয়মিত পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

শ্যামলের বাজার মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ মো. রওশন জামিল বলেন, বয়স হলেও পড়া লেখা কোন হাস্যকর ব্যাপার নয়; এই মূল মন্ত্র ধারণ করে তিনি ইদিলপুর শ্যামলের বাজার মহিলা টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজে থেকে নিয়মিত ছাত্রী হিসেবে এগ্রোবেসড ফুড বিষয়ে ভর্তি হয়ে চলমান জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছেন।

পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শণে গিয়ে সাদুল্লাপুর সহকারী শিক্ষা অফিসার মো.শামছুজ্জামানের নজরে পরেন পরিক্ষার্থী রুমা খাতুন। সাদুল্লাপুর সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো.শামছুজ্জামান এ প্রতিনিধিকে বলেন, লেখাপড়ায় কোন বয়স নাই, যে কোন বয়সে লেখা পড়া করা যায় তার অনন্য উদাহরণ পরীক্ষার্থী রুমা খাতুন। জ্ঞান অর্জনে বয়সের চেয়ে নিজের ইচ্ছা শক্তিকে প্রাধান্য দিয়ে রুমা লেখাপড়া বর্তমান সমাজ ও দেশের জন্য একটি উদাহরণ। তার থেকে অনেকেরই শিক্ষা নেয়া উচিত বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …