Breaking News
Home / সারাদেশ / রংপুর / গাইবান্ধা / গাইবান্ধার জনগণের হৃদয়ে একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ হয়ে বেঁচে থাকতে চাই —পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া

গাইবান্ধার জনগণের হৃদয়ে একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ হয়ে বেঁচে থাকতে চাই —পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া

আল কাদরী কিবরীয়া সবুজ, গাইবান্ধা সংবাদদাতা
সেবাই পুলিশের ধর্ম ৷ এই স্লোগানে ওয়াদাবদ্ধ হয়ে একটি বাহিনী গঠিত হয়েছে সেটিই বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী ৷ মানবের মাঝেই আমি বাঁচিবারে চাই ৷ পুলিশ বাহিনীতে যেভাবে মানুষের কাছে থেকে মানব সেবা করা যায় আমার মনে হয় আর কোন পেশা থেকে এমন সেবা দেয়া সত্যিই দুরুহ ৷ উপরোক্ত কথাগুলো বলেছিলেন গাইবান্ধার পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া ৷ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)এর লেখাপড়ার পাঠ চুকিয়ে চাকুরী নেন বাংলাদেশ পুলিশে ৷ পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন আইবিএ থেকে বিবিএ করেন মানবতার কল্যাণে নিয়োজিত এই পুলিশ সুপার ৷ তিনি বলেন, একজন প্রকৌশলী হয়েও আমার মনের ভিতরে থাকা লুকানো পুঞ্জিভূত আকাঙ্খার জন্যই আমি পুলিশে চাকুরী নিয়েছি ৷ মানুষের জন্য কাজ করার ইচ্ছাটা ছিল আমার স্বপ্ন, আমার ভালবাসা ৷ আল্লাহ আমার সেই আশা পূরণ করেছে পুলিশ বাহিনীতে চাকুরী প্রদানের মাধ্যমে ৷ প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া গাইবান্ধায় আসার পর থেকেই তার মেধা মননশীলতা ও কর্মপরিকল্পনা দিয়ে গাইবান্ধার মানুষকে রেখেছেন শান্তিতে ৷ এখানকার মানুষের জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন ক্লান্তিহীনভাবে ৷ এ জেলার মানুষকে সেবা দিতে তিনি মাঠে ঘাটে, চরাঞ্চলে ছুটে চলেছেন কখনো নৌকায়, কখনো পায়ে হেটে কখনোবা রিক্সায় চড়ে ৷ তিনি গাইবান্ধায় যোগদানের পর থেকে গাইবান্ধা জেলায় সকল প্রকার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ করে ফেলেছেন ৷ আবার অনেকেই ভয়ে এলাকা ছাড়াও হয়েছেন ৷ গাইবান্ধা ছিল নাশকতার প্রধান কেন্দ্রবিন্দু ৷ সাধারনের মানুষের মতে পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়ার হস্তক্ষেপে বর্তমানে শান্তির জেলা হিসেবে গাইবান্ধা রয়েছে শীর্ষে ৷
এই মানুষটি বর্তমানে জেলায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু বলা চলে ৷ কয়েকদিন পূর্বেই ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেখে এক অসহায় বৃদ্ধা ভিক্ষুকের ভাতাসহ আবাসনের ব্যবস্থা করে দেন তিনি ৷ এছাড়াও তিনি এ এলাকার অসহায় অনেক মানুষের দূর্দিনে পাশে এসে দাড়িয়ে নজির স্থাপন করেছেন ৷ পলাশবাড়ি উপজেলায় সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত কমিউনিটি পুলিশিং সদস্য মজিবর রহমানের পরিবারকে তার নিজস্ব তহবিল থেকে নগদ পঁচাত্তর হাজার টাকা প্রদান করে অসহায় পরিবারটির পাশে এসে দাড়িয়েছেন ৷ সদর থানার আলোচিত তৃষা হত্যার পরিবার সহ দূর্ঘটনায় নিহত পুলিশ সদস্যদের পরিবারকেও উপহার হিসেবে ঈদ সামগ্রী ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন ৷ এমন সুন্দর মহানুভব মানুষটিকে পুলিশ সুপার হিসেবে পেয়ে গাইবান্ধার মানুষ আনন্দিত ৷
পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়ার এমন চমৎকার মানবতায় এখন এখানকার মানুষ তাকে আলোকিত মানুষ হিসেবে জানেন ৷ পুলিশ বাহিনীতে এমন মানুষ সত্যিই বিরল বলে জেলাবাসী মনে করেন ৷

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …