Breaking News
Home / আইন ও আদালত / গলাচিপায় ক্লিনিকের ফাঁদে রোগীরা

গলাচিপায় ক্লিনিকের ফাঁদে রোগীরা

নিয়ামুর রশিদ শিহাব, বিশেষ প্রতিনিধি
গলাচিপা উপজেলায় ক্লিনিকে চিকিৎসা সেবার মান ও পরিবেশ নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। ক্লিনিকগুলোতে চিকিৎসার নামে প্রতারণা বাণিজ্য বেশ রমরমাভাবে চলছে। দায়িত্ববানরা অজ্ঞাত কারণে এসব ক্লিনিকের চিকিৎসা সেবা ও প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি বা বৈধ কাগজপত্র আছে কিনা তা দেখেও দেখেন না। সেই সুযোগে অনেকেই বাহারী নামে ক্লিনিক ব্যবসা খুলে রোগীদের লোকজনের থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সরেজমিনে জানা গেছে, সদর উপজেলাসহ পৌরসভার রাস্তার মোড়ে মোড়ে বিভিন্ন ক্লিনিকের বাহারী নামের সাইনবোর্ড চোখে পড়ে। দেশের নামীদামি চিকিৎসকদের বড় বড় উপাধিসহ কে কোথায় চাকুরি করছেন তার ঠিকানাসহ কোন ক্লিনিকে কখন কোথায় বসেন তার ফিরিস্তি দেওয়া আছে। সাধারণ মানুষ তাদের না চিনলেও সরলবিশ্বাসে সাইনবোর্ডের চিকিৎসকের নাম পড়েই সেখানে যাচ্ছেন। বিভিন্ন দালালদের খপ্পরে পরেও রোগীরা ক্লিনিকগুলোতে যাচ্ছেন এর বিনিময়ে দালালরা পাচ্ছেন মোটা অংকের টাকা।

এসব ক্লিনিকের হাতে গোনা কয়েকটি ক্লিনিক ছাড়া অধিকাংশ ক্লিনিকেরই বৈধ কাগজপত্র নেই বলে জানা গেছে। সাইন বোর্ড সবর্স্ব অনেক ক্লিনিকে রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্তির ক্ষেত্রে যেসব শর্তাবলী রয়েছে তার সাথে সামঞ্জস্য নেই। নেই প্রয়োজনীয় সংখ্যক ডাক্তার, নার্সিং, অপারেশন থিয়েটার ও ওষুধপত্র। ফলে এসব ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে এসে প্রতিদিন শত শত মানুষ প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। বাংলাদেশ প্রাইভেট প্রাকটিস অ্যান্ড মেডিকেল অ্যাক্ট ১৯৯২ অনুযায়ী ক্লিনিক প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় ও নির্ধারিত স্থান সম্বলিত এবং নির্দিষ্ট কক্ষ বিশিষ্ট ভবন, অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার ও সরঞ্জামাদী, প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র ছাড়াও বিশেষজ্ঞ পর্যায়ের ডাক্তার, আবাসিক ডাক্তার, সার্জন, স্টাফ নার্স থাকতে হবে। কেবল এসব শর্তাবলী পূরণ সাপেক্ষে বেসরকারিভাবে কোন ক্লিনিক রেজিস্ট্রেশন দেওয়ার কথা। অথচ এসব বিষয়ে কোনটার কমতি আছে কিনা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সেব্যাপারে কোন নজরদারী নেই বলে অনেকেই অভিযোগ করেন।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …