Breaking News
Home / রাজনীতি / তালা-কলারোয়ায় জোট-মহাজোটের রাজনীতিতে চলছে নির্বাচন কেন্দ্রীক নানা সমীকরন

তালা-কলারোয়ায় জোট-মহাজোটের রাজনীতিতে চলছে নির্বাচন কেন্দ্রীক নানা সমীকরন

এসএম হাসান আলী বাচ্চু,তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি:
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক বক্তব্যে সব দলের অংশ গ্রহনে একটি প্রতিদ্বন্দ্বীতামূলক নির্বাচনের আভাস স্পষ্ট হয়ে উঠায় সাতক্ষীরা-১ তালা-কলারোয়া আসনে বিজয়ী হতে রাজনৈতিক দল গুলোর মধ্যে শুরু হয়েছে নানা সমীকরন। জোট-মহাজোট কেন্দ্রীক নির্বাচনী রাজনীতিতে যোগ্য প্রার্থী মনোনয়নে দূরদর্শিতাই আসন্ন নির্বাচনে এ আসনের জয়-পরাজয় নির্ধারন করবে বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

সকল দলের অংশগ্রহনে যে নির্বাচন গুলি অনুষ্ঠিত হয়েছে তার ফলাফল বিশ্লেষনে দেখা যায়,তালা-কলারোয়া নির্বাচনী আসনে শক্ত প্রতিপক্ষকে মোকাবেলা করে বিজয় ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন ১৯৮৬ সালে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সৈয়দ কামাল বখত সাকী , নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয়পার্টির সৈয়দ দিদার বখত। ১৯৮৮ সালের নির্বাচনে জাতীয়পার্টির সৈয়দ দিদার বখত, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাসদের মুক্তিযোদ্ধা মোড়ল আব্দুস সালাম। ১৯৯১ সালে জামায়াতের প্রার্থী অ্যাডভোকেট শেখ আনছার আলী, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের সৈয়দ কামাল বখত। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সৈয়দ কামাল বখত, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয়পার্টির সৈয়দ দিদার বখত। ২০০১ সালের নির্বাচনে ৪ দলীয় জোটের প্রার্থী হাবিবুল ইসলাম হাবিব, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রকৌশলী শেখ মুজিবুর রহমান এবং সর্বশেষ ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হন মহাজোটের প্রার্থী প্রকৌশলী শেখ মুজিবুর রহমান, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি-জামাত মনোনীত প্রার্থী হাবিবুল ইসলাম হাবিব। উল্লেখিত নির্বাচনের ফলাফল বিশ্লেষনে দেখা যায়, জোট- মহাজোটের ভোট ব্যাংকের পাশাপাশি সাধারন ভোটারদের সমর্থন যার পক্ষে গিয়েছে তিনিই নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। ফলে আগামী নির্বাচনে জোট-মহাজোট থেকে মনোনয়ন প্রাপ্ত প্রার্থীদের মধ্যে সাধারন ভোটারদের সমর্থন লাভ করতে সক্ষম প্রার্থীই বিজয়ী হবেন এমন মন্তব্য রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে নির্বাচনী এলাকার সকল শ্রেনী-পেশার মানুষের। বিগত দিনে নির্বাচিত হওয়া প্রার্থীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের সৈয়দ কামাল বখত সাকী, জাসদের মোড়ল আব্দুস সালাম এখন প্রয়াত,জামাতের প্রার্থী অ্যাডভোকেট শেখ আনছার আলী গুরুতর অসুস্থ্য। নির্বাচনে জয় পাওয়া প্রার্থীদের মধ্যে বর্তমানে মাঠে রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রকৌশলী শেখ মুজিবুর রহমান। মহান মুক্তিযুদ্ধে তার অসামান্য অবদানের পাশাপাশি সংসদ সদস্য থাকাকালে এলাকার সকল রাজনৈতিক দলের মানুষ নিরাপদে ও শান্তিতে ছিলো বলে জনশ্রুতি রয়েছে।
জাতীয়পার্টি থেকে ব্যাপক নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছেন সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ দিদার বখত। তালার একটি ঐতিহ্যবাহি পরিবারে জন্ম নেয়া সৈয়দ দিদার বখত মন্ত্রী থাকাকালে তালা- কলারোয়ার একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারিকরন, রাস্তা-ঘাট, ব্রীজ নির্মান, বিদ্যুৎ ব্যাবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে নির্বাচনী এলাকায় রয়েছে তার ব্যাপক জনপ্রিয়তা, একজন সৎ ও যোগ্য প্রার্থী হিসেবে রাজনৈতিক দল গুলোর পাশাপাশি সাধারন মানুষের মধ্যে তার ব্যাপক গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে বলে ধারনা করছেন সচেতন মহল।

অন্যদিকে ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব সংসদ সদস্য থাকাকালে তালা কপোতাক্ষ নদের উপর ব্রিজ নির্মান, রাস্তা-ঘাট ও বিদ্যুৎ ব্যাবস্থার উন্নয়নে প্রসংশনীয় ভুমিকা রাখায় নির্বাচনী এলাকায় তার যথেষ্ট জনপ্রিয়তা রয়েছে। সেই সাথে তার পাশে রয়েছে জামাতের শক্তিশালী ভোট ব্যাংক।

Check Also

রাঙ্গাবালীতে করোনা ভাইরাস-জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী)প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা-ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয় …